• -50%

    জীবন গড়ার কথামালা (মাওয়ায়িজে ইবনু তাইয়িমা)

    গ্রীষ্মের তাপদাহে ফেটে চৌচির হওয়া জমি যেমন আকাশ থেকে নেমে আসা শীতল বারিধারার প্রতীক্ষায় প্রহর গোনে; তেমনি মানুষের অন্তরও অনেক সময় গুনাহের পঙ্কিলতায় আবিল হয়ে বড় কোনো ব্যক্তিত্ত্বের আলোকোজ্জ্বল নসিহতের সন্ধানে থাকে। যা তার তপ্ত হৃদয় শীতল করবে। ভাঙা মন জোড়া লাগাবে। শয়তান আর নসফের জালে আটকা পড়া মানসকে করবে শৃঙ্খলমুক্ত। নহিহতমূলক আলাপন উলামাগণ অনেক সময় স্বতন্ত্র গ্রন্থে করেন, অনেক সময় ভিন্ন বিষয়ের ভেতর দিয়ে তা ছড়িয়েছিটিয়ে রাখেন। সচেতন পাঠককে সেখান থেকে সযত্নে তা কুড়িয়ে নিতে হয়। কিন্তু একবিষয়ের রচনার পাতা থেকে অন্য বিষয়কে গভীর দৃষ্টি হেনে দক্ষ ডুবুরির মতো সমুদ্রের তলদেশ থেকে মনি-মুক্তা আহরণের ন্যায় তুলে আনতে কতজনই বা পারে? কয়জন পাঠকেরই বা থাকে এমন সুদূরপ্রসারী দৃষ্টি ও পাঠ বিচক্ষণতা? এসব কথা বিবেচনা করে দক্ষ পাঠক অনেক সময় নিজের আহরিত নসিহতের সেই টুকরোগুলো সুবিন্যস্ত করে অন্যদের সামনে তুলে ধরার প্রয়াস পান। আমাদের হাতে থাকা বইটিও এমন একটি সংকলন। আরবের প্রখ্যাত আলিম ও সুলেখক সালেহ আহমাদ শামি ফতোয়া ইবনে তাইমিয়া অধ্যয়নকালে নসিহতমূলক কথাগুলো আলাদা করেন এবং পরে সেগুলোকে মলাটবদ্ধ করে পাঠক সমীপে মাওয়ায়িজে ইবনে তাইমিয়া নামে পেশ করেন। সেই বইয়েরই বাংলা ভাষান্তরিত রূপ হলো- জীবন গড়ার কথামালা।

    ৳ 90৳ 180
    প্রকাশনী:
  • দাসত্বের মহিমা

    স্বাধীনতা হলো অন্তরের স্বাধীনতা। দাসত্ব হলো অন্তরের দাসত্ব। একইভাবে সচ্ছলতাও হলো অন্তরের সচ্ছলতা। নবিজি স. বলেছেন,”ধনের আধিক্য থেকে সচ্ছলতা হয় না। সচ্ছলতা হলো অন্তরের সচ্ছলতা।” [সহিহ বুখারি : ৬৪৪৬; সহিহ মুসলিম : ১০৫১]
    .
    ওপরে আমরা অন্তরের গোলামির যেসব কথা বললাম, আল্লাহর কসম, এ কথাগুলো তো সে ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে, যে ক্ষেত্রে ব্যক্তি তার অন্তরকে কোনো বৈধ রূপের গোলাম বানিয়ে ফেলে। অর্থাৎ তার প্রেমের কেন্দ্রবিন্দু হয় নিজ স্ত্রী অথবা মালিকানাভুক্ত দাসী। পক্ষান্তরে যে ব্যক্তি তার অন্তরকে কোনো হারাম রূপের—হোক তা নারী কিংবা শ্মশ্রুবিহীন ছোট বালক—গোলাম বানিয়ে ফেলে, এটা তো এমন জলজ্যান্ত আজাব, যার ধারেকাছে অন্য কোনো আজাব হতে পারে না।

    আরও জানতে বইটির জন্য অপেক্ষা করুন

    প্রকাশনী:
  • আপনার প্রয়োজন আল্লাহকে বলুন

    যিকির। শব্দটা তিন অক্ষরের হলেও এর বিস্তৃতি অত্যন্ত ব্যাপক। বিশ্বাসীদের জীবনে যিকির এক মহাসম্পদ। কারণ এই যিকিরই মুমিনদের স্রষ্টার নিকটবর্তী করে দেয়। যিকির এমন এক অস্ত্র, যা দিয়ে শয়তানকে বধ করা যায়। যিকির এমন এক ঢাল, যা দিয়ে কু-প্রবৃত্তিকে মোকাবিলা করা যায়।
    .
    ব্যাপারটা দুঃখজনক হলেও সত্য—বস্তুবাদী সভ্যতার পাল্লায় পড়ে আজ মুসলিমরাও ধর্মীয় অনুশাসন থেকে দূরে সরে যাচ্ছে। গান-বাদ্য-মুভির পেছনে অধিকাংশ সময় ব্যয় করছে। আল্লাহর যিকির আর ভোগবাদী সভ্যতার উপরকরণের পার্থক্য ব্যাপক। ভোগবাদী সভ্যতার উপকরণগুলো আমাদের অন্তরকে কেবল বিক্ষিপ্তই করে। কিন্তু যিকির মানুষের অন্তরকে পরিশুদ্ধ করে। ব্যথাতুর হৃদয়কে নির্মল করে। আর অন্তরে আল্লাহ ও তাঁর হাবীবের ভালোবাসা জাগ্রত করে।

    প্রকাশনী:

Main Menu

×